আজ- ২২শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং, ৮ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ মঙ্গলবার  রাত ৪:০১

টাঙ্গাইলে দুর্গোৎসবের শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি চলছে

 

দৃষ্টি নিউজ:


টাঙ্গাইলে দুর্গোৎসব উপলক্ষে পুরোদমে প্রস্তুতি চলছে। বছর ঘুরে দুর্গতি নাশিনী দশভুজা দেবী দুর্গা আসছেন সনাতন ধর্মালম্বীদের ঘরে। মায়ের আগমনে আনন্দে মেতে ওঠেছে প্রতিটি হিন্দু ধর্মাবলম্বী পরিবার। দেবীর আগমনে শিল্পীরা এখন প্রতিমার গায়ে তুলির শেষ আঁচড় দিতে ব্যস্ত। ব্যস্ত মায়ের ভক্তরা। ঘর-দুয়ার পরিষ্কার আর নতুন সাজে নিজেকে সাজিয়ে তুলতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন সবাই।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, এবার জেলায় সর্বমোট এক হাজার ১৬২টি মন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এরমধ্যে টাঙ্গাইল সদর উপজেলায় ১৯৩টি, দেলদুয়ার উপজেলায় ১১৪টি, বাসাইল উপজেলায় ৫০টি, ধনবাড়ী উপজেলায় ৩১টি, মধুপুর উপজেলায় ৪৯টি, ঘাটাইল উপজেলায় ৭৬টি, কালিহাতী উপজেলায় ১৭০টি, ভূঞাপুর উপজেলায় ৩৬টি, গোপালপুর উপজেলায় ৪৮টি, সখিপুর উপজেলায় ৪১টি, মির্জাপুর উপজেলায় ২৩৪টি ও নাগরপুর উপজেলায় রয়েছে ১২০টি।
প্রতি বছরের ন্যায় এবারও দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে চুক্তিতে এসে দেবী দুর্গাকে স্বাগত জানাতে প্রতিমা তৈরি ও মন্দির সাজসজ্জায় শিল্পীরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। সময় যত ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে ব্যস্ততা। আগামি ১৪ অক্টোবর মহাপঞ্চমী থেকে মন্ডপে মন্ডপে বেজে উঠবে ঢাক-ঢোল আর কাঁসর ধ্বনি। পাঁচ দিনের উৎসবের ১৯ অক্টোবর প্রতিমা বিসর্জনের পর ঘটবে সমাপ্তি ।
টাঙ্গাইল শহরের শ্রী শ্রী কালীবাড়ি, আদালত পাড়া পুজা সংসদ, রেজিস্ট্রি পাড়া, সাবালিয়া, কলেজ পাড়া, থানা পাড়া, প্যারাডাইস পাড়া, করটিয়া, পাথরাইল, বাজিতপুর, বাঘিল, এনায়েতপুর, সন্তোষ পালপাড়া, বৈল্লা পালপাড়া, শাকরাইলসহ বিভিন্ন পূজা মন্ডপ ঘুরে দেখা যায় দুর্গোৎসবের শেষ মুহুর্তের ব্যাপক ব্যস্ততা। দেবী দুর্গাকে স্বাগতম জানাতে সব জায়গায় সাজ সাজ রব। মন্ডপে মন্ডপে দেবী দুর্গাকে সাজাতে অষ্টপ্রহর প্রাণান্তকর চেষ্টা চলছে। দেবী দুর্গার প্রতীমায় তুলির শেষ ছোঁয়া দিতে শিল্পীরা দারুণ ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।
আদালত পাড়া পূজা সংসদ মন্ডপের প্রতিমা শিল্পী অসিম পাল বলেন, পূর্ব পুরুষ থেকেই আমরা প্রতিমা তৈরির কাজ করছি। এরই ধারাবাহিকতায় এবার দুর্গাপূজায় আদালত পাড়া পূজা সংসদ ছাড়াও আরো ৭টি মন্ডপের প্রতিমা তৈরি করেছি। পূজা আসলেই আমাদের কয়েকগুণ ব্যস্ততা বেড়ে যায়। এখন চলছে শেষ মুহুর্তের কাজ। এখন ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত কাজ করছি। অনেকেই প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ করে প্রতিমার শরীরে রঙের আঁচড় দিচ্ছেন। তিনি আরো বলেন, ১০ বছর যাবত প্রতিমা তৈরি করছি, আশা করছি এবারের প্রতিমা তৈরিতে আমি লাভবান হব। সংসারের যাবতীয় খরচ এর উপর নির্ভর করে।
টাঙ্গাইল জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক প্রদিপ কুমার গুণ ঝন্টু বলেন, প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও প্রতিটি মন্ডপে পুলিশ এবং আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। এছাড়া স্থানীয় লোকজন ভলান্টিয়ার হিসেবে কাজ করবে। তবে আমরা সার্বক্ষণিক প্রতিটি মন্ডপের খোঁজ-খবর নেব।
টাঙ্গাইল জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি আনন্দ মোহন দে বলেন, জেলায় এবার ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় এক হাজার ১৬২টি মন্ডপে পূর্জা অনুষ্ঠিত হবে। তবে মন্ডপের সংখ্যা সামনে বাড়তে পারে। প্রতি বছর সরকারের পক্ষ থেকে আমরা সাহায্য-সহযোগিতা পেয়ে থাকি। আশা করছি এবারও পাব।
টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বলেন, পুলিশের পক্ষ থেকে প্রতিটি পূজা ম-পে পর্যাপ্ত সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন থাকবে। পুলিশের পাশাপাশি আনসার সদস্যও দায়িত্ব পালন করবে। তিনি আরো বলেন, এছাড়া মোবাইল টিম, সাদা পোশাকের পুলিশও কাজ করবে। আশা করছি কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনা ছাড়াই সুষ্ঠু এবং শান্তিপূর্ণভাবে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করেছে

 
 
 

0 Comments

You can be the first one to leave a comment.

 
 

Leave a Comment

 




 
 

 
 
 

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : মু. জোবায়েদ মল্লিক বুলবুল
আশ্রম মার্কেট ২য় তলা, জেলা সদর রোড, বটতলা, টাঙ্গাইল-১৯০০।
ইমেইল: dristytv@gmail.com, info@dristy.tv, editor@dristy.tv
মোবাইল: +৮৮০১৭১৮-০৬৭২৬৩, +৮৮০১৬১০-৭৭৭০৫৩

shopno