আজ- ৩০শে মার্চ, ২০২০ ইং, ১৬ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ সোমবার  রাত ১:০৪

বঙ্গবন্ধুসেতু-ঢাকা মহাসড়কে যাত্রী-চালক যানজটে নাকাল

 

দৃষ্টি নিউজ:

দশ দিনের সাধারণ ছুটি ঘোষণায় বাড়ি ফেরা মানুষের চাপে বঙ্গবন্ধুসেতু-ঢাকা মহাসড়কে বিভিন্ন পয়েণ্টে ২-৩ কিলোমিটার করে দীর্ঘ ৬০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। ফলে যাত্রী সাধারণ চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। মঙ্গলবার(২৪ মার্চ) বিকাল থেকে এ মহাসড়কে যানজট শুরু হয়েছে। বুধবারও(২৫ মার্চ) মহাসড়কে বিভিন্ন পয়েন্টে গিয়ে তীব্র যানজট দেখা গেছে।

যাত্রী ও পুলিশ জানায়, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে দীর্ঘ সাধারণ ছুটি ঘোষণা করায় হাজার হাজার যাত্রী বাড়ি ফিরছেন। এ জন্য মহাসড়কে যানবাহনের চাপ তিন থেকে চারগুণ বেড়ে গেছে। কালিয়াকৈর এলাকার চন্দ্রা থেকে নাটিয়াপাড়া পর্যন্ত যানজটে স্থবির হয়ে পড়েছে। আস্তে আস্তে এ যানজট নাটিয়াপাড়া থেকে বঙ্গবন্ধুসেতুর দিকে দীর্ঘ হচ্ছে। মহাসড়কে কোন কোন এলাকায় ৩০০-৪০০মিটার এলাকায় যানজট কম থাকলেও প্রায় পুরো মহাসড়কেই যানজট রয়েছে। মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই শিল্পাঞ্চলের গোড়াই-হাটুভাঙ্গা আন্ডারপাস এলাকায় ৫০০মিটার রাস্তার বেহাল দশা ও আন্ডারপাসের কাজ বন্ধ থাকায় দুই পাশে ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। উত্তরবঙ্গগামী গাড়িগুলো ধীরলয়ে চলছে। আর ঢাকাগামী গাড়িগুলো মোটামোটি গতিতে চলছে। গোড়াই থেকে মির্জাপুর পর্যন্ত আসতে ৭-৮ঘণ্টা সময় লাগছে। এছাড়া এলেঙ্গা অংশে মহাসড়ক দেবে যাওয়ায় ধীর লয়ে গাড়ি চলাচল করায় যানজট হচ্ছে।

ঢাকা থেকে পাবনাগামী ট্রাকচালক মতিন মিয়া জানান, ঢাকার কুড়িল বিশ্বরোড থেকে মঙ্গলবার দিনগত রাত ১০টায় যাত্রা শুরু করেই যানজটে পড়েন তিনি। ১০ ঘণ্টা পর বুধবার (২৫ মার্চ) সকাল আটটার সময়ও মির্জাপুর অতিক্রম করতে পারেননি। যদিও কুড়িল বিশ্বরোড থেকে মির্জাপুর পৌঁছতে মাত্র দুই ঘণ্টা লাগার কথা।

গাইবান্ধাগামী পিকআপভ্যানের যাত্রী মো. আলম মিয়া ঢাকায় রিকশা চালান। মঙ্গলবার রাত দুইটার দিকে ঢাকার গেন্ডারিয়া থেকে এই পিকআপভ্যানে উঠেছেন। যানজটের কারণে চালক অনেক কৌশল করে চালিয়েছেন। তবু মির্জাপুর পৌঁছতে সকাল আটটা বেজে যায়।

রিজার্ভ বাসের চালক মোহন মিয়া বলেন, সিরাজগঞ্জের উদ্দেশে ঢাকার মহাখালী থেকে রাত সাড়ে ১১টায় ছেড়ে গাজিপুরের চন্দ্রায় তিনি যানজটে পড়েন। বুধবার সাড়ে ১২টার দিকে করটিয়া হাট বাইপাস অতিক্রম করছেন। চন্দ্রা থেকে মির্জাপুরের গোড়াই এলাকা পর্যন্ত তীব্র যানজট হচ্ছে। এছাড়া গোড়াই থেকে করটিয়া হাট বাইপাস পর্যন্ত জটের কারণেই থেমে থেমে কখনো ধীরলয়ে গাড়ি চালিয়ে আসতে হয়েছে।

মঙ্গলবার রাত ১২টায় ঢাকা থেকে রাজশাহীর উদ্দেশে ছেড়ে আসা পিকআপভ্যানে যাত্রী মো. ফারুক হোসেন জানান, করোনার কারণে ছুটি হওয়ায় গ্রামে যাওয়ার জন্য বাসে সিট না পেয়ে তিনি পিকআপের যাত্রী হন। তবে যানজটের কারণে বুধবার সকাল পৌনে ৭টায় তিনি মির্জাপুর পর্যন্ত এসে আটকা পড়েন।

যানজটে আটকে থাকা ট্রাকচালক বাদশা মিয়া জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় ঢাকা থেকে বগুড়ার উদ্দেশে রওনা হয়ে বুধবার সকাল ৬টায় তিনি মির্জাপুর এসে পৌঁছেন। অপর ট্রাকচালক লাল চাঁন জানান, মঙ্গলবার সন্ধা ৭টায় তিনি ঢাকা থেকে রাজশাহীর উদ্দেশে রওনা হয়ে বুধবার সকাল সোয়া ৬টায় মির্জাপুর পর্যন্ত পৌঁছেন।

মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মো. সায়েদুর রহমান জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে দীর্ঘ দিনের ছুটি পড়েছে। এক দিকে রাস্তা ভাঙ্গাচোরা, অন্য দিকে মহাসড়কের যানবাহনের চাপ বেড়ে যাওয়ায় যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। মির্জাপুরের গোড়াই ও কদিমধল্যা নামকস্থানে আন্ডারপাসের কাজ চলমান থাকায় ওই অংশে ওয়ানওয়েতে যানবাহন চলাচল করাও যানজটের একটি কারণ। তবে যানজট নিরসনের জন্য থানা পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। বুধবার দিনগত রাতের মধ্যে মহাসড়কে যানজট আর থাকবেনা বলে জানান ওসি।

গোড়াই হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মো. মনিরুজ্জামান মনির জানান, গোড়াই আন্ডারপাস এলাকায় ৫০০মিটার রাস্তা ভাঙ্গা থাকায় যানজট এখন মহাসংকটে পরিণত হয়েছে। রাস্তা ও আন্ডারপাস নির্মাণের কাজ বন্ধ থাকার পাশাপাশি বড়িফেরা মানুষের চাপে এ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। তিনি আরো জানান, গার্মেন্টস বন্ধ হয়েছে। রাস্তায় বাস চলছে না। বাস রিজার্ভ করে মানুষ গন্তব্যে রওনা হয়েছেন।

মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে চার লেনের কাজ চলছে। এলেঙ্গা অংশে মহাসড়ক অনেকটা দেবে যাওয়ায় ধীরে গাড়ি চলাচল করছে। এরই মধ্যে পুলিশ যানজট নিরসনে প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে যাচ্ছে। আন্ডারপাস নির্মাণ শেষ না হওয়া পর্যন্ত এখানে যানজট ও দুর্ভোগ লাগবের তেমন সম্ভাবনা নেই। তবে বাড়িফেরা মানুষের অতিরিক্ত চাপ কমার সাথে সাথে যানজটও কমে যাবে।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করেছে

 
 
 

0 Comments

You can be the first one to leave a comment.

 
 

Leave a Comment

 




 
 

 
 
 

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : মু. জোবায়েদ মল্লিক বুলবুল
আশ্রম মার্কেট ২য় তলা, জেলা সদর রোড, বটতলা, টাঙ্গাইল-১৯০০।
ইমেইল: dristytv@gmail.com, info@dristy.tv, editor@dristy.tv
মোবাইল: +৮৮০১৭১৮-০৬৭২৬৩, +৮৮০১৬১০-৭৭৭০৫৩

shopno