আজ- ২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ রবিবার  সকাল ৯:১০

দেলদুয়ারে আট বছর ধরে রাজাকারপুত্র ছাত্রলীগের সভাপতি!

 

দৃষ্টি নিউজ:

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে যুদ্ধাপরাধী মৃত খোকন মিয়ার ছেলে মো. মাসুদ রানা দীর্ঘ আট বছর ধরে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। মো. মাসুদ রানার বাবা মৃত খোকন মিয়ার নাম যুদ্ধাপরাধীর তালিকায় লিপিবদ্ধ থাকার বিষয়টি সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।


জানা যায়, বিগত ২০১৪ সালের ১৭ জুলাই ৬১ সদস্য বিশিষ্ট দেলদুয়ার উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা হয়। ওই সময় সম্মেলন না করে মো. মাসুদ রানাকে সভাপতি ও হাবিবুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক করে উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়।

দীর্ঘ আট বছরেও উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠন বা সম্মেলন না হওয়ায় ওই কমিটির বৈধতা নিয়ে নড়েচড়ে বসেন পদ প্রত্যাশী ছাত্রলীগ নেতারা। দেলদুয়ার উপজেলার ’৭১ এর যুদ্ধাপরাধী-রাজাকারের তালিকা সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

ওই তালিকায় বর্তমান ছাত্রলীগ সভাপতি মো. মাসুদ রানার বাবা মৃত খোকন মিয়ার নাম ১৬ নম্বর ক্রমিকে লেখা হয়েছে দেখা যায়। তালিকাটি উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার আফাজ উদ্দিনের স্বাক্ষর-সীলমোহর সম্বলিত।


দেলদুয়ার উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের অপর সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের বাবলু জানান, দেলদুয়ার উপজেলায় তালিকাভুক্ত ১৬ জন রাজাকার রয়েছে। এর মধ্যে মৌলভীপাড়া গ্রামের মৃত রিয়াজ মিয়ার ছেলে খোকন মিয়াও রয়েছেন। বর্তমান ছাত্রলীগ সভাপতি মাসুদ রানা রাজাকার খোকন মিয়ার ছেলে।


টাঙ্গাইল সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার দেলদুয়ার উপজেলার বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহাঙ্গীর হোসেন তালুকদার জানান, মৌলভীপাড়ার খোকন মিয়া ছিল তার সহপাঠী। ’৭১-এ মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেন, আর খোকন রাজাকারে যোগদান করে। খোকন মিয়া একজন তালিকাভুক্ত রাজাকার বিষয়টি শতভাগ সত্য। এতে বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই।


টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস হোসেন জানান, দেলদুয়ার উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি আট বছর আগে করা হয়েছিল। সে সময় তিনি সাধারণ সম্পাদক ছিলেন না। তবে মো. মাসুদ রানা রাজাকার পুত্র কিনা বিষয়টি নিশ্চিত করবে এলাকাবাসী। তবে এরকম প্রমাণিত হলে সাংগঠনিক বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


অভিযুক্ত ছাত্রলীগ সভাপতি মো. মাসুদ রানা জানান, একটি পক্ষ তার ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। যুদ্ধাপরাধীর তালিকায় তার বাবার নাম আছে তা তিনি জানতেন না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে তিনি জানতে পেরেছেন।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করেছে

 
 
 
 
 

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : মু. জোবায়েদ মল্লিক বুলবুল
আশ্রম মার্কেট ২য় তলা, জেলা সদর রোড, বটতলা, টাঙ্গাইল-১৯০০।
ইমেইল: dristytv@gmail.com, info@dristy.tv, editor@dristy.tv
মোবাইল: +৮৮০১৭১৮-০৬৭২৬৩, +৮৮০১৬১০-৭৭৭০৫৩

shopno