আজ- ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ সোমবার  রাত ১১:০০

আজ শ্যামাপূজা ও দীপাবলি উৎসব

 

দৃষ্টি নিউজ:

dristy-13আজ শনিবার(২৯ অক্টোবর) শ্যামাপূজা ও দীপাবলি উৎসব। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব। শ্যামা পূজাকে কালীপূজাও বলা হয়। দেবী দুর্গার অন্য একটি রূপ হচ্ছে শ্যামা বা কালী। সংস্কৃত ভাষার ‘কাল’ শব্দ থেকে কালী নামের উৎপত্তি হয়েছে। কালীপূজা শক্তির পূজা এবং শক্তির আরাধনা করা। জগতের সব অশুভ শক্তিকে পরাজিত করে শুভশক্তির বিজয়ের মধ্যেই কালীপূজার মূল মাহাত্ম্য নিহিত রয়েছে। এছাড়া এই দেবী সনাতন ধর্মাবলম্বীদের কাছে আদ্যা মা, তারা মা, চামুন্ডা মা, ভদ্রাকালী, দেবী মহামায়া নামেও পরিচিত এবং পূজিত হন। আজ রাতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে শ্যামাপূজা অনুষ্ঠিত হবে।
ঢাকা মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীর ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির, সিদ্ধেশ্বরী কালী মন্দির, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার রমনা কালী মন্দির, সবুজবাগে শ্রী শ্রী বরদেশ্বরী কালীমাতা মন্দির, সূত্রাপুরের বিহারীলাল জিঁউ মন্দির, পুরান ঢাকার ৮৪ নাম্বার বনগ্রাম রোডে রাধাগোবিন্দ জিঁউ ঠাকুর মন্দির, রামসীতা মন্দির, ঢাকেশ্বরী বাড়ি, গৌতম মন্দির, ঠাঁটারিবাজারের শিবমন্দির, তাঁতিবাজার, শাঁখারিবাজার, বাংলাবাজারসহ বিভিন্ন এলাকার মন্ডপ ও মন্দিরে মহাসমারোহে শ্যামাপূজার আয়োজন করা হয়েছে। রাজধানীর পোস্তগোলা মহাশ্মশানে আলোকসজ্জা করা হবে। এছাড়া শ্রী শ্রী শ্যামাপূজা উপলক্ষে বিভিন্ন মন্দিরে আলোচনা সভা, আরতি প্রদান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও ভক্তিমূলক গানের আয়োজন করা হয়েছে। সন্ধ্যায় সনাতন ধর্মাবলম্বীরা সহস্র প্রদীপ জ্বালিয়ে দীপাবলি উৎসব উদযাপন করবেন।
হিন্দু পুরাণ মতে, দীপাবলি উৎসব ঐতিহ্যগতভাবে রাবণবধের পর রামচন্দ্র অযোধ্যায় ফিরে যে আনন্দোৎসব করেছিলেন- তা স্মরণ করেই এ উৎসব পালিত হয়। আবার হিন্দুধর্মের অবতার শ্রী কৃষ্ণের নরকাসুর বধের স্মারক হিসেবেও এ উৎসবকে নরকচতুর্দশীও বলা হয়। দীপাবলি হচ্ছে আলোর উৎসব। অশুভ আর অকল্যাণের প্রতীক অন্ধকার বিদূরিত করে শুভ ও কল্যাণ প্রতিষ্ঠায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা এ উৎসব পালন করেন। সুখ-শান্তি, জ্ঞান ও সম্পদ প্রদানের জন্য এ উৎসবের মাধ্যমে ঈশ্বরের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানানো হয়। সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ঘরে ঘরে জ্বলে উঠবে আলোর প্রদীপ। আলোকসজ্জার মধ্যদিয়ে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা জগৎজুড়ে অাঁধার বিনাশের প্রার্থনা করেন।
পুরাণমতে দীপাবলি হিন্দুদের একটি বিশেষ উৎসব। মহালয়ায় শ্রাদ্ধ গ্রহণের জন্য যমলোক ছেড়ে যে পিতৃ-পুরুষগণ মর্ত্যে আগমন করেন বলে কল্পিত আছে, তাদের পথ-প্রদর্শনার্থে প্রদীপ জ্বালানো হয়। এ পূজায় স্বর্গীয় পিতা-মাতা ও আত্মীয়স্বজনকে স্মরণ করেন। এ কারণে পরিবারের মৃত ব্যক্তির স্মরণে তার সমাধি ও শ্মশানেও প্রদীপ জ্বালানো হয়। এ উৎসবটি স্থান ভেদে বিভিন্ন নামে পরিচিত। দিওয়ালি, দীপান্বিতা, দীপালিকা, সুখরাত্রি, সুখসুপ্তিকা, নবরাত্রি ও যক্ষরাত্রি নামেও পরিচিত। বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল, মরিশাস, সিঙ্গাপুরসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দীপাবলি জাঁকজমকপূর্ণভাবে এ উৎসব পালন করা হয়। অনেকে প্রিয়জনদের কিছু না কিছু উপহার দিয়ে থাকেন।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করেছে

 
 
 
 
 

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : মু. জোবায়েদ মল্লিক বুলবুল
আশ্রম মার্কেট ২য় তলা, জেলা সদর রোড, বটতলা, টাঙ্গাইল-১৯০০।
ইমেইল: dristytv@gmail.com, info@dristy.tv, editor@dristy.tv
মোবাইল: +৮৮০১৭১৮-০৬৭২৬৩, +৮৮০১৬১০-৭৭৭০৫৩

shopno