আজ- ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ বুধবার  সকাল ৯:৪৫

টাঙ্গাইল-৪ আসনে উপ-নির্বাচনে সোহেল হাজারি নির্বাচিত

 

দৃষ্টি নিউজ:

dristy-dir-53
জাতীয় সংসদের টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনে উপ-নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারি বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোট ১ লাখ ৯৩ হাজার ৫৪৭। উপ-নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম মঙ্গলবার(৩১ জানুয়ারি) ভোট গণনা শেষে বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করেন।
উপ-নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম জানান, ১০৭টি কেন্দ্রের মধ্যে ১০৬টির ফলাফল পাওয়া গেছে। অপর একটি কেন্দ্রে ভোট গ্রহন স্থগিত রাখা হয়েছে, ওই কেন্দ্রের মোট ভোট সংখ্যা ২হাজার ৭৪৩টি। প্রাপ্ত ফলাফলে আওয়ামীলীগ প্রার্থী হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারি নৌকা প্রতীকে ১ লাখ ৯৩ হাজার ৫৪৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ন্যাশনাল পিপলস পার্টির ইমরুল কায়েস আম প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৬৯৬ ভোট। এছাড়া বাংলাদেশ ন্যাশনালিষ্ট ফ্রন্ট(বিএনএফ) প্রার্থী আতাউর রহমান খান টেলিভিশন প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৩২০ ভোট।
তিনি জানান, মোট ৩ লাখ ৭ হাজার ৭০০ ভোটারের মধ্যে ১ লাখ ৯৭ হাজার ৯৭৪ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এরমধ্যে ১ হাজার ৪১১ জনের ভোট বাতিল বলে গন্য হয়।

নিজ কেন্দ্রে ভোট দিচ্ছেন সোহেল হাজারি

নিজ কেন্দ্রে ভোট দিচ্ছেন সোহেল হাজারি

উল্লেখ্য, নিউ ইয়র্কে এক সভায় বিতর্কিত বক্তব্য দিয়ে আওয়ামী লীগ থেকে বহিস্কৃত এবং মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়ার পর ২০১৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের সংসদ সদস্য পদ থেকে আবদুল লতিফ সিদ্দিকী পদত্যাগ করেন। এতে শূন্য হয়ে যায় ওই আসন। এই সংসদীয় আসনটি শূন্য ঘোষণা করে ওই বছরের ৩ সেপ্টেম্বর গেজেট প্রকাশ করে সংসদ সচিবালয়। এ আসনে উপনির্বাচনে প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্র জমা দেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী। তবে ঋণখেলাপের অভিযোগে রিটার্নিং কর্মকর্তা ২০১৫ সালের ১৩ অক্টোবর তাঁর মনোনয়নপত্র বাতিল করেন। এর বিরুদ্ধে কাদের সিদ্দিকী নির্বাচন কমিশনে আপিল করলে তা ওই বছরের ১৮ অক্টোবর খারিজ হয়। এরপর প্রার্থিতা ফিরে পেতে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন তিনি। ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট কাদের সিদ্দিকীর রিট আবেদনের ওপর রায় দেন। এতে মনোনয়নপত্র বাতিল করে নির্বাচন কমিশনের দেওয়া সিদ্ধান্ত বহাল রাখা হয়। ফলে স্থগিতাদেশ উঠে যায়। তখন নির্বাচন কমিশনের আইনজীবী বলেছিলেন, রায়ের পর টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠানে আর কোনো আইনগত বাধা থাকছে না। আর ওই উপ-নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারছেন না কাদের সিদ্দিকী। এরপর আসনটিতে ২০ মার্চ উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠানের ঘোষণা দেয় নির্বাচন কমিশন। হাইকোর্টের ওই রায়ের বিরুদ্ধে ২০১৬ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি আপিল বিভাগে আবেদন করেন কাদের সিদ্দিকী। চলতি বছরের ১৮ জানুয়ারি কাদের সিদ্দিকীর মনোনয়নপত্র অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেওয়া রায় বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। এর ফলেপ্রার্থী হওয়ার সুযোগ হারান তিনি। পরে ৩১ জানুয়ারি পুণরায় নির্বাচনের দিন ঘোষণা করা হয়।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করেছে

 
 
 
 
 

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : মু. জোবায়েদ মল্লিক বুলবুল
আশ্রম মার্কেট ২য় তলা, জেলা সদর রোড, বটতলা, টাঙ্গাইল-১৯০০।
ইমেইল: dristytv@gmail.com, info@dristy.tv, editor@dristy.tv
মোবাইল: +৮৮০১৭১৮-০৬৭২৬৩, +৮৮০১৬১০-৭৭৭০৫৩

shopno