আজ- ৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ মঙ্গলবার  রাত ১২:২৬

বিশ্বে প্রতি সাত সেকেন্ডে একটি বাল্য বিয়ে হচ্ছে!

 

দৃষ্টি ডেস্ক:

dristy-7মেয়েদের বেড়ে ওঠার, বিকশিত হওয়ার সুযোগ বিচার করে সেইভ দ্য চিলড্রেন বিশ্বের ১৪৪ দেশের যে সারণী প্রকাশ করেছে, তাতে বাংলাদেশের অবস্থান ১১১ নাম্বারে। এই তালিকায় সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে আফগানিস্তান ছাড়া সবচেয়ে বাজে অবস্থায় রয়েছে বাংলাদেশ।
সেইভ দ্য চিলড্রেন মেয়ে শিশুদের সুস্থ-স্বাভাবিকভাবে বেড়ে ওঠার ক্ষেত্রে বাল্যবিয়েকে সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা হিসেবে চিহ্নিত করেছে। তাদের প্রতিবেদন বলছে, বিশ্বে প্রতি সাত সেকেন্ড একটি মেয়ের বিয়ে হয়ে যাচ্ছে বয়স ১৫ পূর্ণ করার আগেই।
সোমবার(১০ অক্টোবর) প্রকাশিত এই ‘গার্লস অপরচুনিটি ইনডেক্স’ অনুযায়ী, কন্যা শিশুদের জন্য বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে কঠিন দেশ নাইজার। আর মেয়েদের জন্য সবচেয়ে বেশি সুযোগ তৈরি করতে পেরেছে সুইডেন।
সেইভ দ্য চিলড্রেন জানিয়েছে, জাতিসংঘ ও বিশ্ব ব্যাংকের সংগ্রহ করা গত এক বছরের তথ্য উপাত্ত ব্যবহার করে তারা এই প্রতিবেদন তৈরি করেছে। কোন দেশের কী অবস্থা তা বুঝতে ব্যবহার করা হয়েছে পাঁচটি সূচক।
এই পাঁচ সূচক হলো- বাল্যবিয়ে, কিশোরী বয়সে মাতৃত্ব, প্রসূতিমৃত্যুর হার, পার্লামেন্টে নারীর প্রতিনিধিত্ব এবং নিম্ন মাধ্যমিকে ছাত্রীদের ঝরে পড়ার হার।
সেইভ দ্য চিলড্রেনের সিইও ক্যারোলিন মাইলস জানান, বাল্যবিয়ের মধ্য দিয়ে একটি মেয়ের জীবনে অনেকগুলো ক্ষতির সূচনা হয়। জোর করে বিয়ে দেয়া মানে, তার স্কুলজীবনের ইতি। অনেক ক্ষেত্রে সে পারিবারিক সহিংসতা, নির্যাতন এমনকি ধর্ষণেরও শিকার হয়। শরীর ও মন তৈরি হওয়ার আগেই তাকে সন্তান ধারণ করতে হয়। তার এবং তার সন্তানের স্বাস্থ্যর জন্য এর ফল হয় মারাত্নক।
তিনি বলেন, ‘কিছুদিন আগেই আমি বাংলাদেশে গিয়েছিলাম। সেখানে ১৮ বছর বয়স হওয়ার আগেই এক তৃতীয়াংশ মেয়ের বিয়ে হয়ে যাচ্ছে। অনেক দেশেই এটাকে সামাজিক সংস্কৃতির অংশ হিসেবে দেখা হয়, সরকারি নীতির অংশ হিসেবে নয়; এটা আমাকে দারুণ পীড়িত করে।’
গার্লস অপরচুনিটি ইনডেক্স_ শীর্ষে যারা: ১. সুইডেন, ২. ফিনল্যান্ড, ৩. নরওয়ে, ৪. নেদারল্যান্ডস, ৫. বেলজিয়াম, ৬. ডেনমার্ক, ৭. সস্নোভেনিয়া, ৮. পর্তুগাল, ৯. সুইজারল্যান্ড, ১০. ইটালি।
তলানিতে যারা: ১৩৫. আইভরি কোস্ট, ১৩৬. নাইজেরিয়া, ১৩৭. গিনি, ১৩৮. মালাওয়ি, ১৩৯. সিয়েরা লিয়ন, ১৪০. সোমালিয়া, ১৪১. মালি, ১৪২. সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক, ১৪৩. শাদ, ১৪৪. নাইজার।
সূচকে সবচেয়ে ভালো অবস্থায় থাকা দেশগুলোর প্রায় সবই ইউরোপীয় রাষ্ট্র। আর সবার পেছনে পড়ে থাকা দেশগুলো সাব সাহারান আফ্রিকার। সূচকে যুক্তরাজ্যের  অবস্থান ১৫ ও যুক্তরাষ্ট্র ৩২ নাম্বারে।
সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে মেয়ে শিশুদের পরিস্থিতি সবচেয়ে ভালো মালদ্বীপে। সূচকে দেশটি রয়েছে ৫০তম অবস্থানে। এছাড়া শ্রীলংকা তালিকার ৬০, ভুটান ৮০, নেপাল ৮৫, পাকিস্তান ৮৮, ভারত ৯০ এবং আফগানিস্তান ১২১তম অবস্থানে রয়েছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়, নাইজারে বাল্যবিয়ের হার ৭৬ শতাংশ। আর প্রতি পাঁচজন কিশোরীর মধ্যে গড়ে একজন ওই বয়সেই মা হয়।
ব্র্যাকের এক গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে বাল্যবিয়ের হার ৬৫ শতাংশ, যা দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বোচ্চ এবং পৃথিবীতে চতুর্থ। বাংলাদেশে প্রতি তিনটি বিয়ের দুটিতেই কনের বয়স থাকে ১৮ বছরের নিচে। বাল্যবিয়ের ৮০ শতাংশই ঘটে দরিদ্র পরিবারে।
মেয়েদের বিয়ের নূ্যনতম বয়স ১৮ বছর থেকে কমানো যায় কিনা- তা নিয়ে ২০১৩ সালে মন্ত্রিসভার এক বৈঠকে আলোচনা হলে বিভিন্ন মহল থেকে এর বিরোধিতা করা হয়।
তারপরও গতবছর মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে একটি আইনের খসড়া তৈরি করে, যাতে ‘বিশেষ পরিস্থিতিতে’ মেয়েদের বিয়ের নূ্যনতম বয়স ১৬ বছর করার প্রস্তাব করা হয়।
মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি সে সময় ‘বিশেষ পরিস্থিতির’ ব্যাখ্যায় বলেন, ‘মেয়ে প্রেমঘটিত কারণে ছেলের সঙ্গে পালিয়ে গেলে বা মেয়ে ছেলের বাড়িতে চলে যাওয়ার পর নিজের বাড়িতে ফিরে আসতে অস্বীকৃতি জানালে বা বিয়ের আগে গর্ভবতী হলে- এরকম পরিস্থিতিতে ১৬ বছর করা যায় কিনা, তা সরকার চিন্তা-ভাবনা করছে।’
এ নিয়ে সিদ্ধান্তে আসার আগে চলতি বছর এপ্রিলে মাতৃমৃত্যু রোধ ও বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে গণমাধ্যম প্রতিনিধিদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় ক্ষমতাসীন দলের দুই সংসদ সদস্যও বিয়ের বয়স কমানোর প্রস্তাবে তাদের আপত্তির কথা তুলে ধরে বলেন, কোনো ধরনের শর্ত রেখেও মেয়েদের বিয়ের নূ্যনতম বয়স ১৮ এর নিচে আনা উচিত হবে না।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করেছে

 
 
 
 
 

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : মু. জোবায়েদ মল্লিক বুলবুল
আশ্রম মার্কেট ২য় তলা, জেলা সদর রোড, বটতলা, টাঙ্গাইল-১৯০০।
ইমেইল: dristytv@gmail.com, info@dristy.tv, editor@dristy.tv
মোবাইল: +৮৮০১৭১৮-০৬৭২৬৩, +৮৮০১৬১০-৭৭৭০৫৩

shopno