আজ- ১৬ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং, ৩রা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ সোমবার  রাত ১২:৫৩

টাঙ্গাইলের তাঁতের শাড়ি বিশ্ববাজারে ॥ জাতীয় বাজেটে বিশেষ বরাদ্দের দাবি

 

বুলবুল মল্লিক:


বিশ্বের সকল প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা বাঙালি নারীর শাড়ির প্রতি রয়েছে আলাদা টান। এ বিচারে তাঁত শাড়ির প্রতি তাদের বাড়তি আকর্ষণ আবহমানকালের। টাঙ্গাইলের তাঁত শাড়ি বাঙালি নারীদের কাছে সবচেয়ে প্রিয়। প্রতি বছরের মতো এবারের ঈদেও টাঙ্গাইলের তাঁত শাড়িতে এসেছে বৈচিত্র আর নতুনত্ব। বাহারি ডিজাইনের শাড়ি বুনন এবং দেশ-বিদেশে সরবরাহে এখন ব্যস্ত সময় কাটছে টাঙ্গাইলের তাঁতী এলাকাগুলো। দেশের পাশাপাশি বিদেশেও ব্যাপক চাহিদা রয়েছে টাঙ্গাইল শাড়ির। প্রতিবছর লাখ লাখ পিস শাড়ি রপ্তানি হচ্ছে। প্রতিবারের মতো এবারও শুধুমাত্র ভারতেই রপ্তানি হচ্ছে প্রায় ১৫ লাখ পিস শাড়ি। শাড়ির পাশাপাশি থ্রি-পিসের চাহিদাও ব্যাপক রয়েছে। ঈদ সামনে রেখে অন্য বছরের চেয়ে এবার আরও মুনাফা অর্জনের লক্ষ্য নিয়ে ব্যবসায়ীরা কাজ করে যাচ্ছেন। বৈরি আবহাওয়া এবারের বাজার ব্যবস্থায় কিছুটা ছন্দপতন ঘটিয়েছে। থেমে থেমে দীর্ঘ মেয়াদী বৃষ্টির সাথে বজ্রপাত শাড়ি প্রস্তুতকারীদের মাঝে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। প্রতিকূল পরিবেশের কারণে এবারের শাড়ির বাজার আশানুরূপ না হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
এক পরিসংখ্যানে জানাগেছে, জেলায় ৬৪ হাজার একশ’ তাঁত রয়েছে। আর এতে প্রায় এক লাখ ৩০ হাজার শ্রমিক কাজ করে। এদিকে, ঈদ উপলক্ষে শাড়ি কেনার জন্য টাঙ্গাইলের তাঁতপল্লী ছাড়াও বিভিন্ন মার্কেটগুলোতে ভিড় করছেন ক্রেতারা। দেশের চাহিদা মিটিয়ে এসব শাড়ি বিদেশেও রফতানি হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র, ইংল্যান্ড, ইতালি, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, মালয়েশিয়া, ভারত ও মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে টাঙ্গাইলের শাড়ি যাচ্ছে। আসন্ন ঈদুল ফিতরে শুধুমাত্র ভারতের বাজারেই যাচ্ছে প্রায় ১৫ লাখ পিস টাঙ্গাইল শাড়ি। ঈদকে সামনে রেখে ভিন্ন ডিজাইন আর ভিন্ন দামের শাড়ি এবার বাজারে এসেছে। এর মধ্যে বালচুড়ি, হ্যান্ডি ব্লক, জুট কাতান, সুতি, হাফ সিল্ক, জামদানি সিল্ক, মসলিন এমব্রয়ডারি, জামদানি, ধুপিয়ান ও ঝলক কাতান। এবারের ঈদে নতুন মোড়কে বাজারে এসেছে জুট কাতান আর জামদানি সিল্ক। আর ক্রেতাদের পছন্দের তালিকায় রয়েছে জামদানি, সুুতি, টাঙ্গাইল শাড়িসহ হাতে বোনা সিল্ক শাড়ি। ক্রেতারা এবার গরমের কারণে সুতি শাড়িকে প্রাধান্য দিচ্ছেন। এবারের ঈদ বাজারে প্রতি সুতি শাড়ির দাম রাখা হচ্ছে ৬০০ থেকে আড়াই হাজার টাকা, হ্যান্ড ব্লক ৭৫০ থেকে চার হাজার টাকা, বালুচুড়ি দেড় হাজার থেকে সাড়ে ছয় হাজার এবং জামদানি আড়াই হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা। এছাড়া ডিজাইন ও রকম ভেদে শাড়িগুলোর দাম রাখা হয়েছে চার হাজার থেকে সাড়ে ১৮ হাজার টাকা পর্যন্ত। এন্ডি সিল্কের ওপর স্ট্রাইপ ও নকশা করা নতুন ডিজাইনের শাড়ি সাড়ে চার হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা, ধুপিয়ান ও বলাকা সিল্কের শাড়িগুলো চার হাজার থেকে সাড়ে ছয় হাজার টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। এবারের ঈদেও জামদানি শাড়ি তার ঐতিহ্য ধরে রেখেছে। টাঙ্গাইলের তাঁত শাড়ির মধ্যে সুতি জামদানি, বালুচুড়ি, সফ্ট সিল্ক ও বেনারসী জামদানি শাড়ির সবচেয়ে বেশি কদর।
ইতিহাস থেকে জানা যায়, বসাক সম্প্রদায়ের তাঁতীরাই হচ্ছে টাঙ্গাইলের আদি তাঁতী অর্থাৎ আদিকাল থেকেই এরা তন্তুবায়ী গোত্রের লোক। শুরুতে এরা সিন্ধু অববাহিকা থেকে পশ্চিম বঙ্গের মুর্শিদাবাদ হয়ে চলে আসেন বাংলাদেশের রাজশাহী অঞ্চলে। আবহাওয়া অনেকাংশে প্রতিকূল দেখে বসাকরা দু’দলে ভাগ হয়ে একদল চলে আসে কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর, অন্যদল ঢাকার ধামরাইয়ে। তবে এদের কিছু অংশ সিল্কের কাজের সঙ্গে যুক্ত হয়ে রাজশাহীতেই থেকে যায়। তবে আরো ভালো জায়গার খোঁজ করতে করতে অনেক বসাক টাঙ্গাইলে এসে বসতি স্থাপন করেন। এখানকার আবহাওয়া তাদের জন্য অনকূল হওয়াতে পুরোদমে তাঁত বোনার কাজে লেগে পড়েন। টাঙ্গাইলে বংশানুক্রমে যুগের পর যুগ তারা তাঁত বুনে আসছেন। এক কালে টাঙ্গাইলে বেশির ভাগ এলাকা জুড়ে বসাক শ্রেণির বসবাস ছিল, তারা বসাক সমিতির মাধ্যমে অনভিজ্ঞ তাঁতিদেরকে প্রশিক্ষণ দান ও কাপড়ের মান নিয়ন্ত্রন করতেন। ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দে দেশভাগ ও ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের পর অনেক বসাক তাঁতী ভারত চলে যান। এ সময় বসাক ছাড়াও অন্যান্য সম্প্রদায়ের লোকেরাও তাঁত শিল্পের সঙ্গে গভীরভাবে জড়িয়ে পড়েন। তারা বসাক তাঁতীদের মতোই দক্ষ হয়ে ওঠেন।
টাঙ্গাইলের তাঁতের শাড়ি তৈরি করতে হাতের কাজ করা হয় খুব দরদ দিয়ে, গভীর মনোসংযোগের সাথে অত্যন্ত সুক্ষè ও সুদৃশ্য ভাবে। পুরুষেরা তাঁত বুনে, আর চরকায় নারীরা সুতা কাটে। রঙকরা, জরির কাজে সহযোগিতা করে বাড়ির মহিলারা। তাঁতীরা মনের রঙ মিশিয়ে শাড়ির জমিনে শিল্প সম্মতভাবে নানা ডিজাইন করে বা নকশা আঁকে, ফুল তোলে।
জেলার তাঁতপল্লীগুলো সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ঈদ উপলক্ষে টাঙ্গাইলের বিভিন্ন তাঁতপল্লী সরগরম হয়ে ওঠেছে। তাদের তৈরি কাপড় ব্যাপকভাবে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হচ্ছে। হরেক রকম ডিজাইনের নিজেদের পছন্দের কাপড় কিনতে মার্কেটে ক্রেতা ও পাইকারদের কমতি নেই। উৎপাদন বেশি ও অন্যান্য মাসের চেয়ে একটু বেশি লাভবান হতে তাঁত মালিকরা বোনাস নিয়ে হাজির হচ্ছেন শ্রমিকদের সামনে। আর শ্রমিকরাও বোনাসের আশায় দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তাঁতপল্লীগুলোতে শুধু পুরুষ নয়, বাড়ির মহিলারাও যথেষ্ট শ্রম দিচ্ছে। কেউ সুতা ছিটায় উঠানোর কাজে, কেউ সুতা পাড়ি করার কাজে, আবার কেউ সুতা নাটাইয়ে উঠানোর কাজে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। শেষ মুহুর্তে তাঁতী এলাকাগুলোতে চলছে ঈদ কাপড় তৈরির ধুম।
টাঙ্গাইল শাড়ির রাজধানী পাথরাইলের যজ্ঞেশ্বর অ্যান্ড কোং-এর স্বত্ত্বাধিকারী রঘুনাথ বসাক বলেন, দেশের দূর-দূরান্ত থেকে আমাদের নিয়মিত ক্রেতারা আসছেন। পাশাপাশি নতুন ব্যবসায়ী ও বিদেশিরাও আসছেন, সরাসরি টাঙ্গাইল শাড়ি নিতে। এবার শাড়ির মূল্য অন্য বছরের তুলনায় স্বাভাবিক। তাছাড়া প্রতিকূল পরিবেশ শাড়ি তৈরিতে কিছুটা বিরূপ প্রভাব ফেলেছে, বিক্রিতেও সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। আমরা সাধারণ মধ্যবিত্ত ক্রেতাদের আয়ের কথা চিন্তা করে যতটা সম্ভব মূল্য কম রাখার চেষ্টা করছি। তিনি আরও বলেন, গত কয়েক বছর যাবত ভারতে প্রচুর টাঙ্গাইল শাড়ি যাচ্ছে। এছাড়া, যুক্তরাষ্ট্র, ইংল্যান্ড, ইতালি, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, মালয়েশিয়া ও মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে টাঙ্গাইলের শাড়ি যাচ্ছে। আমরা শ্রম-ঘাম ঝড়িয়ে বৈদেশিক মুদ্রা এনে দিচ্ছি- অথচ জাতীয় বাজেটে তাঁতীদের জন্য কোন বিশেষ ব্যবস্থা নেই। তিনি জাতীয় বাজেটে তাঁতীদের জন্য বিশেষ বরাদ্দের দাবি জানান।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করেছে

 
 
 

0 Comments

You can be the first one to leave a comment.

 
 

Leave a Comment

 




 
 

 
 
 

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : মু. জোবায়েদ মল্লিক বুলবুল
আশ্রম মার্কেট ২য় তলা, জেলা সদর রোড, বটতলা, টাঙ্গাইল-১৯০০।
ইমেইল: dristytv@gmail.com, info@dristy.tv, editor@dristy.tv
মোবাইল: +৮৮০১৭১৮-০৬৭২৬৩, +৮৮০১৬১০-৭৭৭০৫৩

shopno