আজ- ১৬ই জুলাই, ২০১৮ ইং, ১লা শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ সোমবার  সকাল ৮:৫২

তিন মাস চারদিন পর কবর থেকে ধর্ষিত গৃহবধূর মরদেহ উত্তোলন

 

দৃষ্টি নিউজ:

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে তিন মাস চারদিন পর অপহরণের পর দফায়-দফায় ধর্ষণ ও শারিরীক নির্যাতনে নিহত গৃহবধূ কাকলী বেগমের(২৩) মরদেহ আদালতের নির্দেশে ময়না তদন্তের জন্য কবর থেকে উত্তোলন করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। সোমবার(৯ জুলাই) বিকালে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফা সিদ্দিকার নেতৃত্বে উপজেলার বানিয়াজান ইউানয়নের চুনিয়া পটল গ্রামের পারিবারিক কবরস্থান থেকে কাকলীর মরদেহ উত্তোলন করা হয়। এ সময় সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যসহ এলাকাবাসী, সাংবাদিক, বেসরকারি মানবাধিকার সংগঠন নিজেরা করি ও ভূমিহীন সমিতির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
জানা যায়, টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার চুনিয়া পটল গ্রামের আব্দুর রহমানের মেয়ে কাকলী বেগমের পাশের বলদিআটা গ্রামের শাহজান আলীর ছেলে লিটন মিয়ার সাথে ২০১৩ সালের ২৮ মে সামাজিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের দাম্পত্য জীবন ভালোই কাটছিল। এরই মধ্যে পাশের বাড়ির ছাহের আলীর ছেলে রেজাউল হক (৩০) মাঝে মধ্যে কাকলী বেগমকে কু-প্রস্তাব দিতে থাকে। এতে রাজি না হলে রেজাউল ক্ষিপ্ত হয়ে চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারি(শনিবার) সন্ধ্যায় কাকলী বেগম বাবার বাড়ি যাওয়ার পথে গৈরাং নামকস্থানে আরো ৭-৮ জন দুর্বৃত্তকে সাথে নিয়ে জোর পূর্বক একটি মাইক্রোবাসে উঠিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায়। অপহরণের পর অজ্ঞাতস্থানে রেখে তাকে চেতনানাশক ওষুধ খাইয়ে দফায়-দফায় ধর্ষণ করতে থাকে। এভাবে পৈশাচিক, শারিরীক ও মানসিক নির্যাতনের এক পর্যায়ে কাকলী বেগম নিস্তেজ হয়ে পড়লে মৃত ভেবে গত ৪ এপ্রিল(বুধবার) রাতে অজ্ঞান অবস্থায় তাকে তার বাড়ির পাশে রাস্তায় ফেলে রেখে যায়। এমতাবস্থায় এলাকাবাসীর সহায়তায় তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এদিকে, ন্যাক্কারজনক এ ঘটনাটি স্থানীয় ইউপি মেম্বার শাজহান ওরফে কহিনুরের নেতৃত্বে সালিশি বৈঠকের মাধ্যমে চার লাখ টাকায় ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করা হয়। পরে সামাজিক চাপে ময়নাতদন্ত ছাড়াই ওই গৃহবধূর মরদেহ দাফন করা হয়।
এ ঘটনার পরপরই ধনবাড়ী থানায় মামলা করতে গেলে প্রভাবশালী রেজাউল গংদের চাপে রহস্যজনক কারণে পুলিশ মামলা নেননি। ফলে বাধ্য হয়ে নিহতের মা হেলেনা বেগম টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্র্যাইব্যুনালে মামলা দায়ের(নং- ১৫৯/২০১৮ইং) করেন। মামলা দায়ের করার পর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত মরদেহ কবর থেকে উত্তোলন করে ময়নাতদন্তের আদেশ দেয়।
মামলার বাদী হেলেনা বেগমকে মামলা প্রত্যাহরের হুমকি দেয়া হয় বলে তিনি দাবি করেন।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করেছে

 
 
 

0 Comments

You can be the first one to leave a comment.

 
 

Leave a Comment

 




 
 

 
 
 

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : মু. জোবায়েদ মল্লিক বুলবুল
আশ্রম মার্কেট ২য় তলা, জেলা সদর রোড, বটতলা, টাঙ্গাইল-১৯০০।
ইমেইল: dristytv@gmail.com, info@dristy.tv, editor@dristy.tv
মোবাইল: +৮৮০১৭১৮-০৬৭২৬৩, +৮৮০১৬১০-৭৭৭০৫৩

shopno